কুরকুমের যতগুণ

হলুদ ছাড়া তরকারি রান্নার কথা কল্পনাই করতে পারে না আমাদের মা-বোনেরা। দেশী প্রায় বেশিরভাগ তরকারিতেই হলুদ ব্যবহৃত হয়। অল্প কিছু রান্নায় হয়তো হলুদ লাগে না তবে প্রতিদিন সাধারণত যেসব আইটেম রান্না করা হয় তার সব গুলোতেই হলুদ লাগে।

রান্নার এক অপরিহার্য অনুষঙ্গ এই হলুদ। সাধারণত হলুদ গুঁড়োই সবাই রান্নায় ব্যবহার করে থাকেন। সবার হাতে বিশুদ্ধ পণ্য পৌঁছে দেয়ার প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে বেশ কয়েক বছর হলো আমরা হলুদ গুঁড়ো – ‘কুরকুম’ নিয়ে এসেছি। হলুদ সংগ্রহ করা থেকে শুকিয়ে গুঁড়ো করা সবই হয় আমাদের তত্বাবধানে। সেজন্যই আমরা খাঁটি জিনিসের নিশ্চয়তা দিতে পারি। আমাদের কোনো পণ্যে কোনোরকম ভেজাল জিনিস, কেমিকেল, রঙ, কৃত্রিম ঘ্রাণ কিছুই ব্যবহার করা হয় না।

হলুদ গুঁড়োর ছোট্ট আরেকটি ব্যবহার জানিয়ে দেই। আপনি দুধ চা বানানোর সময় যদি আদা, এলাচের পাশাপাশি সামান্য হলুদ গুঁড়ো অ্যাড করেন তাহলে তা স্বাদ এবং ঘ্রাণে অন্যরকম ভালো লাগা এনে দেবে।
তাছাড়া আপনি সকালে নাস্তার আগে হলুদ গুঁড়ো আর গোলমরিচ গুঁড়ো জ্বালিয়ে নিয়ে চায়ের মত পান করতে পারেন। মধু যোগ করে নিতে পারেন চাইলে। হলুদে কারকিউমিন নামক একটি উপাদান রয়েছে যা ফ্যাট বার্ন করতে সহায়তা করে। তবে সমস্যা হলো এই কারকিউমিন সহসাই শরীর শুষে নিতে পারে না আর এখানেই গোলমরিচের কাজ শুরু। সামান্য একটু গোলমরিচ যোগ করে নিলে কারকিউমিন অনেক দ্রুতই রক্তে মিশে যায়। আর অসম্ভব উপকারিতা রয়েছে এই পানীয়ের। যেমন ওজন কমানো, ডিপ্রেশন দূর করা, গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করা, ব্রেস্ট ক্যান্সার, স্টোমাক ক্যান্সারের রোগীদের জন্য এটি উপকারী, প্রদাহ দূর করা, আরথ্রাইটিস ও হাই কোলেস্টেরল এর সমস্যা কমানো, হৃদরোগের ঝুঁকি কমানো সহ অন্যান্য অনেক উপকার রয়েছে।

X